পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে ভারত

বিশ্বকাপে অপরাজিত ভারত৷ সেমিফাইনালে পাকিস্তানকে পর্যুদস্ত করে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল ‘মেন ইন ব্লু’-র যুবারা৷ মঙ্গলবার পচেস্ট্রুমে প্রথম সেমিফাইনালে চিরশত্রু পাকিস্তানকে ১০ উইকেটে হারায় ভারত৷ চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে অসহায় আত্মসমর্পণ পাক ক্রিকেটারদের৷ রবিবার সেমিফাইনালে বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের বিজয়ীর সঙ্গে খেলবে ভারত৷

টস-ভাগ্য সঙ্গ না দিলেও আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে মনোবল ভেঙে পড়েনি ভারতীয় ক্রিকেটারদের৷ হাই-ভোল্টেজ ম্যাচে পাকিস্তানকে ১৭২ রানে শেষ করে দেন ভারতের বোলাররা৷ ৪৩.১ ওভারে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান৷  ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করতে ভারতের প্রয়োজন ছিল ১৭৩ রান৷ কোনও উইকেট না-হারিয়ে হাসতে হাসতে ভারতকে জয় এনে দেন দুই ওপেনা যশস্বী জসওয়াল এবং দিব্যাংশ সাক্সেনা৷ দুরন্ত সেঞ্চুরি করেন যশস্বী৷ ১০৫ রানে অপরাজিত থাকেন বাঁ-হাতি এই ওপেনার৷ ১১৩ বলের ইনিংসে ৪টি ছয় ও ৮টি বাউন্ডারি মারেন যশস্বী৷ আর ৫৯ রানে অপরাজিত থাকেন সাক্সেনা৷

লিগে অপরাজিত থাকার পর কোয়ার্টার ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে শেষ চারে উঠেছিল ভারতীয় দল৷ সেমিফাইনালে বিরাট-রোহিতের উত্তরসূরিদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি পাকিস্তান৷ গতবারের চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে কোনও প্রতিযোগিতা গড়ে তুলতে পারেনি পাক ক্রিকেটাররা৷ টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে ভারতীয় বোলারদের সামনে বিশেষ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি পাক ব্যাটসম্যানরা৷

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন পাক অধিনায়ক৷ ওপেনার হায়দার আলি একপ্রান্ত আঁকড়ে পড়ে থাকলেও ইনিংসের শুরু থেকেই পাকিস্তান শিবিরে ধাক্কা দিতে থাকে ভারত৷ অপর ওপেনার মহম্মদ হুরাইরাকে ৪ রানে আউট করেন সুশান্ত মিশ্র৷ খাতা খুলতে পারেননি তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামা ফাহাদ মুনির৷ তাঁকে সাজঘরে ফেরান রবি বিষ্ণোই৷ ক্যাপ্টেন রোহিল নাজিরকে সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ করার চেষ্টা করেন হায়দার৷ তবে দলকে খুব বেশিদূর টেনে নিয়ে যেত পারেননি৷ তৃতীয় উইকেটের জুটিতে ৬২ রান যোগ করে আউট হন হায়দার৷ ৭৭ বলে ৫৬ রান করে যশস্বীর শিকার হন তিনি৷

কাসিম আকরাম ৯ রান করে ক্যাপ্টেনের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান-আউট হন৷ মহম্মদ হ্যারিস ব্যাট চালিয়ে চাপ কাটানোর চেষ্ট করলেও সফল হননি৷ আঙ্কোলেকরের বলে ২১ রান করা হ্যারিসের দুরন্ত ক্যাচ ধরেন দিব্যাংশ সাক্সেনা৷ ক্যাপ্টেন নাজির দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬২ রান করে সুশান্ত মিশ্রর বলে আউট হওয়ার পরেই ধসে যায় পাক ইনিংস৷ ইরফান খান ৩, আব্বাস আফ্রিদি ২, তাহির হুসেন ২ ও আমির আলি ১ রান করে আউট হন৷ ভারতের হয়ে দুরন্ত বোলিং করেন সুশান্ত মিশ্র৷ মাত্র ২৮ রান দিয়ে তিনটি উইকেট তুলে নেন তিনি৷ এছাড়া কার্তিক ত্যাগি ও রবি বিষ্ণোই দু’টি করে উইকেট নেন৷ তবে দুরন্ত সেঞ্চুরি করেন ম্যাচের সেরা যশস্বী৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: