আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে মালিকদের করণীয়ঃ

আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে মালিকদের করণীয়ঃ

 

আলোরকন্ঠ ডেস্কঃ

১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস, যা বিশ্বের ইতিহাসে ‘মহান মে দিবস’ বা শ্রমিক দিবস হিসেবে গুরুত্বসহকারে পালিত হচ্ছে।

 

১৮৮৬ সালের ১ মে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের

শ্রমিকরা ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে জমায়েত হন। এ সময় পুলিশ তাদের ওপর গুলিবর্ষণ করলে প্রাণ হারান ১২ জন। শ্রমিকদের এই আত্মদান পরবর্তীকালে শ্রমিক আন্দোলনের প্রেরণায় পরিণত হয়। ১৮৮৯ সালে ফরাসি বিপ্লবের শতবার্ষিকীতে প্যারিসে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে শিকাগোর রক্তঝরা দিনটিকে শ্রমিক দিবস হিসেবে পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়, যা পরবর্তী সময়ে ‘মে দিবস’ নামে পালিত হতে শুরু করে।মে দিবসে বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী সরকারি ছুটি।

 

মহান আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে বিশ্বের সকল মালিকদের করণীয় হবে শ্রমিকদের সাথে ভালো ব্যবহার করা। তাদের সাথে রাজা ও প্রজার ব্যবধান ভুলে যাওয়া।

 

কারন আদরে দুলাল মা আমিনার নয়নমণি বিশ্বনবী (সা) কোনদিন শ্রমিকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করেন নি। মনে রাখতে হবে সবকিছুর মালিক / স্রষ্টা মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন, আমরা মুলত এসব কিছুর প্রতিনিধিত্ব করছি মাত্র।

 

একদিন আহলে সুফফার অন্যতম সাহাবী হযরত আনাস (রা) কে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, হে আনাস দীর্ঘ দশ বছর তুমি রাসুলের বাসায় কাজ করেছো এসময়ের মধ্যে রাসুল (সা) তোমার সাথে কেমন ব্যবহার করছে?

 

উত্তরে হযরত আনাস বলেন আমার দীর্ঘ দশ বছরে কোনদিন আল্লাহর রাসুল(সা) ধমক তথা আমার দিকে চোখ রাঙিয়ে কথা বলেন নি!

 

এ হাদিস থেকে সূর্যালোকের ন্যায় সপ্ষ্ট বুঝা যায় যে, শ্রমিকদের সাথে খারপ ব্যবহার করা আসাদের উচিত নয়। কারন তারা পরিবার পরিজন রেখে দীর্ঘ সময় মাথার ঘাম বিসর্জন দিয়ে মালিকের কাজ সততার সাথে করেন।

 

আর মহারাজাধিরাজ আল্লাহ পাক তাদের এ হালাল রুজির বরকত বাড়িয়ে দেন।

 

বিশ্ববাসির সুপার টিচার রাসুলে আকরাম (সা) বলেছেন, তোমরা শ্রমিকদের কে তাদের গায়ের ঘাম শুকিয়ে যাওয়ার পূর্বে তাদের মজুরি দিয়ে দাও। আর সম্ভব হলে তাদের কে বাড়তি কিছু দাও। এর প্রকৃত অর্থ হলো তোমরা শ্রমিকদের কে ন্যায্য মূল্য দাও। তাদের ন্যায্য মুল্য দিতে কার্পন্য করা উচিত নয়।

 

আসুন আন্তর্জাতিক মহান মে দিবসে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহন করি যে, শ্রমিকদের কে তাদের ন্যায্য মূল্য প্রদান করবো ও তাদের সাথে বন্ধুসূলভ আচরন করবো। আমিন সুম্মা আমিন।

 

লেখক – মোঃ জানে-আলম শেখ (এম.এ ফাস্ট ক্লাস ফাস্ট)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: