ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মসজিদের অনুদান আত্মসাৎ

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মসজিদের অনুদান আত্মসাৎ,

 

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মসজিদের অনুদানের টাকা কম প্রদান ও ভূয়া মসজিদ দেখিয়ে অনুদানের টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগে সদর উপজেলার শুখানপুকুরী ইউনিয়নের মোঃ জয়নাল আবেদিন ওরফে মন্ডল (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে ৬ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (২৬ মে) দুপুরে এ সাজা প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন।

দন্ডপ্রাপ্ত মোঃ জয়নাল আবেদিন ওরফে মন্ডল ওই ইউনিয়নের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ইউনিয়ন লিডার এবং ব্যাংরোল বুঝারিপাড়া মসজিদের খতিব। তার পিতার নাম তোয়াজ শেখ।

জানা যায়, করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রধানমন্ত্রী দেশের প্রত্যকটি মসজিদে ৫০০০ টাকা করে অনুদান প্রদানের সিদ্ধান্ত নেন। সে মোতাবেক ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় পৌরসভাসহ ১১৪০টি মসজিদে ঈদের আগেই ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকা প্রদান করেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার। ইসলামিক ফাউন্ডেশন সমুদয় টাকা উত্তোলন করে তাদের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে ইউনিয়নের মসজিদগুলোতে সেই টাকা বিতরণ করেন।

এদিকে সদর উপজেলার শুখানপুকুরী ইউনিয়নের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি জয়নাল আবেদিন ওরফে মন্ডল তার নিয়ন্ত্রণাধীন মসজিদগুলোতে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দ পাঁচ হাজার টাকা করে না দিয়ে কোন মসজিদে ২০০০, কোন মসজিদে ৩০০০ আবার কোথাও ২৫০০ টাকা করে বিতরণ করেন। শুধু তাই নয় ওই ইউনিয়নে ৬টি ভূয়া মসজিদ দেখিয়ে ১. রাসেদ, পিতা-শুকুর আলী মাস্টার ২. সাহার আলী, পিতা- ভুতু শেখ ওরফে কোরবান ৩. শুকুর আলী, পিতা-ভুতু শেখ ওরফে কোরবান ৪. ইলিয়াস, পিতা-রহমান ৫. আলম, পিতা-ইয়ামুদ্দিন ও বদিউল, পিতা-কানচিয়া মুন্সিকে মসজিদের মুয়াজ্জিন বানিয়ে ৩০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন।

বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে গতকাল রাতেই ওই ইউনিয়নের ইউপি মেম্বার আমজাদসহ স্থানীয়রা জয়নাল আবেদিন ওরফে মন্ডলকে ইউনিয়ন পরিষদে আটক করে রাখেন। আজ তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে তিনি তার নিজের দোষ স্বীকার করেন। পরে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মসজিদের অনুদানের টাকা কম প্রদান ও ভূয়া মসজিদ দেখিয়ে অনুদানের টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন বলেন, করেনা পরিস্থিতির কারণে মসজিদে মসজিদে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া অনুদানের টাকা আত্মসাতকারী কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। আজ একজন আত্মসাতকারীকে সাজা প্রদান করা হয়েছে। আমরা প্রত্যেকটি মসজিদে খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু করেছি। অনিয়ম পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: