বাসে হঠাৎ অজ্ঞান,বাসস্ট্যান্ডে রেখে যাওয়া যাত্রীকে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ


[22 JUN 2020]

বাসের মধ্যে হঠাৎ করে অজ্ঞান হয়ে পড়ায় করোনা রোগী সন্দেহে এক নারীকে বাসস্যান্ডে রেখে যাওয়ার পর তাকে উদ্ধার করে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে নরসিংদী জেলা পুলিশ। পুলিশের ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা প্রদানের পর ওই নারী সুস্থ হয়ে উঠলে তাকে বাড়িও পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ।

শনিবার (২০ জুন ২০২০খ্রিঃ) আরজিনা আক্তার (১৮) নামের এক নারী নারায়নগঞ্জ থেকে নিজের গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার অলিপুরা গ্রামে যাওয়ার সময় হঠাৎ করে বাসের মধ্যে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। কিন্তু বাসের লোকজন তাকে করোনা রোগী সন্দেহ করে অজ্ঞান অবস্থায় মাধবদী বাসস্ট্যান্ডে নামিয়ে রেখে চলে যান।

এক নারীকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেও আশপাশের লোকজন কেউ তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি। একপর্যায়ে এক ব্যক্তি জরুরি সেবা সার্ভিস ৯৯৯ লাইনে ফোন করে বিষয়টি পুলিশকে জানায়। পুলিশ গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে দ্রুত পাশ্ববর্তী একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ওই নারীকে জরুরি চিকিৎসা প্রদান করা হলে তিনি জ্ঞান ফিরে পান। হাসপাতালে থেকে ওই নারীকে সুস্থ ঘোষণার পর ঔষধপত্র ও হালকা খাবারসহ ওই নারীকে তার গ্রামের বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ।
সর্বদাই জনগণের পাশে, বাংলাদেশ পুলিশ।

BANGLADESH POLICE MEDIA,PHQ
[22 JUN 2020]

বাসের মধ্যে হঠাৎ করে অজ্ঞান হয়ে পড়ায় করোনা রোগী সন্দেহে এক নারীকে বাসস্যান্ডে রেখে যাওয়ার পর তাকে উদ্ধার করে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে নরসিংদী জেলা পুলিশ। পুলিশের ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা প্রদানের পর ওই নারী সুস্থ হয়ে উঠলে তাকে বাড়িও পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ।

শনিবার (২০ জুন ২০২০খ্রিঃ) আরজিনা আক্তার (১৮) নামের এক নারী নারায়নগঞ্জ থেকে নিজের গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার অলিপুরা গ্রামে যাওয়ার সময় হঠাৎ করে বাসের মধ্যে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। কিন্তু বাসের লোকজন তাকে করোনা রোগী সন্দেহ করে অজ্ঞান অবস্থায় মাধবদী বাসস্ট্যান্ডে নামিয়ে রেখে চলে যান।

এক নারীকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেও আশপাশের লোকজন কেউ তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি। একপর্যায়ে এক ব্যক্তি জরুরি সেবা সার্ভিস ৯৯৯ লাইনে ফোন করে বিষয়টি পুলিশকে জানায়। পুলিশ গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে দ্রুত পাশ্ববর্তী একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ওই নারীকে জরুরি চিকিৎসা প্রদান করা হলে তিনি জ্ঞান ফিরে পান। হাসপাতালে থেকে ওই নারীকে সুস্থ ঘোষণার পর ঔষধপত্র ও হালকা খাবারসহ ওই নারীকে তার গ্রামের বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ।
সর্বদাই জনগণের পাশে, বাংলাদেশ পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: